প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব : বিজয়ী আইভী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব  বিজয়ী আইভী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নির্বাচন নিয়ে বিএনপির অভিযোগের উপযুক্ত জবাব দিয়েছে নারায়ণগঞ্জবাসী। একই সঙ্গে তিনি বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ মেয়র নির্বাচনে কোনো কথা খুঁজে না পেয়ে দলটি জুডিশিয়াল এনকোয়ারির কথা বলছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সদ্য বিজয়ী মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সেলিনা হায়াৎ আইভীকে নৌকা প্রতীক দিয়েছিলেন শেখ হাসিনা। নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে দলীয় প্রধানকে আজ সেই নৌকাই ফিরিয়ে দিলেন আইভী, তবে সেটি ফুলের তৈরি। পরে আবেগ আপ্লুত কণ্ঠে সদ্য বিজয়ী এই মেয়র দলীয় প্রধানের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের নেতা সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘এটা প্রমাণ করে দিয়েছে শেখ হাসিনার অধীনে যে কোনো ধরনের নির্বাচন, একদম সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব। সেটা নারায়ণগঞ্জবাসী প্রমাণ করেছে এবং যেই গণতন্ত্রের কথা বলা হয়েছে, গণতন্ত্র হত্যা করা হয়েছে, সেই গণতন্ত্র দেখিয়ে দিয়েছে গণতন্ত্র কাকে বলে।’

দলীয় প্রধানের এই স্নেহ যাতে সব সময় থাকে, সেই প্রত্যাশা করে আইভী বলেন, নারায়ণগঞ্জে উদাহরণ সৃষ্টি হলো, এটা এখন সারা দেশে হবে। প্রধানমন্ত্রী জানান, তাঁর বিশ্বাস ছিল অবাধ-নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আইভীকে ভোট দেবে নারায়ণগঞ্জের মানুষ।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার একটাই নির্দেশ ছিল। নির্বাচনটা হবে শান্তিপূর্ণ, অবাধ ও নিরপেক্ষ। সাধারণ মানুষ যেন ভোটটা সঠিকভাবে দিতে পারে। এবং আমার এই বিশ্বাস ছিল, আস্থা ছিল জনগণের প্রতি, বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জের ভোটারদের প্রতি যে তারা ভোট দেওয়ার সুযোগ পেলে নৌকা মার্কায় ভোট দেবে এবং আইভীকে ভোট দেবে। এতে কোনো সন্দেহ ছিল না। কাজেই সে জন্য আমি সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।’

প্রধানমন্ত্রী অভিযোগ করে বলেন, জন্ম থেকেই বিএনপি সব সময় ভোট চুরি করেছে, ভোট নিয়ে কারচুপি করেছে। যে দলটি এত অপরাধ করেছে উল্লেখ করে তিনি জানতে চান, এ দেশের মানুষ বিএনপিকে ভোট দেয় কী করে? তুলে ধরেন আওয়ামী লীগ আমলে দেশের নির্বাচনের চিত্র।

বিএনপির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপিকে আমি একটা বলব, আজকে তারা কোনো কথা খুঁজে পাচ্ছে না। কী যে বলবে। এখন মানে কোথায় কী আছে। আবার দেখলাম জুডিশিয়াল ইনকোয়ারিও চাচ্ছে। যখন কিছু না পায় তখন একটা কিছু তাদের বলতে হবে। বলার তাদের মুখ নাই।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘নির্বাচন যে সুষ্ঠু, অবাধ করা যায় সেটা আওয়ামী লীগ সরকার প্রমাণ করেছে প্রত্যেকটি নির্বাচনে। প্রত্যেকটি নির্বাচন আমরা বলতে পারি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। এবং জনগণ ভোট দিয়েছে। জনগণ যাকে ভোট দিয়েছে তারাই জয়ী হয়েছে। কারণ বিএনপি নিজেই তো পাঁচটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জয়ী হয়েছিল। আওয়ামী লীগের আমলে যদি ভোট কারচুপি হয় তাহলে পাঁচটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তারা জয়ী হলো কীভাবে? সেখানে তো আওয়ামী লীগ কিছু করতে যায়নি। জনগণ যে ম্যান্ডেট দিয়েছে আমরা সেটাই মেনে নিয়েছি। কাজেই এই নির্বাচন আমি মনে করি, এটা একটা, এতদিন যে অভিযোগ করে আসছিল সেই অভিযোগের একটা উপযুক্ত জবাব নারায়ণগঞ্জবাসী দিয়ে দিয়েছ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *