খাগড়াছড়িতে আ’লীগ দুই গ্রুপের সংঘর্ষ: দোকান ও গাড়ী ভাংচুর

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়িতে দুস্কৃতিকারী কর্তৃক জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরীর উপর হামলা ও মারধরের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্প্রতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় জেলা আওয়ামীলীগের অফিসের সামনে এ ঘটনা ঘটেছে।

পরে আহত নির্মলেন্দু চৌধুরীকে খাগড়াছড়ি পৌর মেয়র রফিকুল আলম হাসপাতালে নিয়ে যায় বলে জানা যায়। এ ঘটনার জন্য পৌর মেয়রকে দায়ী প্রতিবাদে লাঠি মিছিল করেছে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরার সমর্থকরা।

দুপুর ১টার দিকে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরার সমর্থকরা কদমতলীস্থ কার্যালয় থেকে মিছিল বের করে। মিছিলটি প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে বিক্ষুব্দরা নারকেল বাগানস্থ জেলা আওয়ামীলীগ অফিসে হামলা চালিয়ে সামনের দোকান ভাংচুর ও দলীয় অফিসে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে ফেরার পথে বিক্ষুব্দরা ২টি টমটম, ১টি মোটর সাইকেল ও ২টি চাঁদের গাড়ী ভাংচুর করে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, বৃহস্প্রতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় নির্মলেন্দু চৌধুরী জেলা আওয়ামীলীগ অফিসের সামনে এলে দুর্বত্তরা তাকে হামলা চালিয়ে মারধর করে। তখন দলীয় অফিসের ভেতর ছিল মেয়র রফিকুল আলম ও আওয়ামীলীগের নেতারা। পরে বিষয়টি শুনে মেয়র সহ অন্যান্যরা ছুটে এসে আহত নির্মলেন্দু চৌধুরীকে উদ্ধার করে নিজ গাড়ীতে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় মেয়র রফিকুল আলমকে দায়ী করলেও তিনি এ বিষয়ে  দু:খ প্রকাশ করে বলেন, কে বা কারা তার উপর হামলা চালিয়েছে তা আমি জানি না। তবে আমি দলীয় অফিসের ভেতর থেকে হট্টগোল শুনে ছুটে এসে তাকে হাসতালে নিয়ে যাই।

এ ঘটনার পর দলীয় অফিসে হামলার বিষয়ে মেয়র রফিকুল আলম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হামলাকারীদের আটক করে আইনের আওতায় নেওয়া হোক। কিন্তু এ ঘটনার জন্য দলীয় অফিসে হামলা-ভাংচুরের ঘটনা দু:খজনক ও উদ্যোশ প্রণোদিত বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এদিকে- নির্মলেন্দু চৌধুরীর উপর হামলার ঘটনায় জেলা আওয়ামীলীগের যুব বিষয়ক সম্পাদক  ও পাজেপ সদস্য মংসেইপ্রু চৌধুরী অপু এঘটনার জন্য মেয়রের লোকজনকে দায়ী করেন এবং দ্রুততম সময়ের মধ্যে হামলাকারীদের আটক করে শাস্তি দাবী করেন।

এ ঘটনায় খাগড়াছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: হান্নান জানান, নির্মলেন্দু চৌধুরীর উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। কোন লিখিত অভিযোগ এখন পাইনি। বিষয়টি খতিয়ে দেখে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *