গুইমারা সেনা রিজিয়ন কর্তৃক পাহাড়ের হতদ্ররিদ্র গরীব পরিবারের মাঝে কম্বল বিতরণ

আল মামুন: ১৯ জানুয়ারী  সকাল ১০টায় খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলার “মানিকছড়ি গিরি মৈত্রী ডিগ্রী কলেজ” মাঠে  গুইমারা রিজিয়ন এর উদ্যোগে প্রায় ২হাজার জন পাহাড়ী-বাঙ্গালী গরিব অসহায় ও  দুস্থদের  মাঝে কম্বল বিতরণ করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।  কম্বল বিতরণ উপলক্ষে মানিকছড়ি গিরী মৈত্রী ডিগ্রী কলেজে এক সভা অনুষ্ঠিত হয় এতে সভাপতিত্বে করেন সিন্দুকছড়ি জোন কমান্ডার লেঃ কর্ণেল গোলাম ফজলে রাব্বী পিএসসি ।
২৪ আটিলারি ব্রিগেড গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ কামরুজ্জামান এনডিসি, পিএসসি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কম্বল বিতরণ করেন। এসময় বিশেষ অতিথি ছিলেন খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বাবু কংজরী চৌধুরী, মানিকছড়ি  উপজেলা চেয়ারম্যান ¤্রাগ্য মারমা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিনিতা রাণী, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেমং মারমা গুইমারা সদর ইউপি, বাবু চাইথোয়াই চৌধুরী হাফছড়ি ইউপি, মানিন্দ্র লাল চাকমা পথাছড়া ইউপি, রেদাক মারমা সিন্দুকছড়ি ইউপি, জয়নাল আবেদীন যুগ্যাছলা ইউপি, রফিকুল ইসলাম বাবুল তিনটহরী ইউপি, সফিকুল রহমান, সদর মানিকছড়ি ইউপি । গুইমারা বিজিয়নের তিনটি জোন সিন্দুকছড়ি, লক্ষ্মীছড়ি ও  মাটিরাঙ্গা জোনের অধিনন্থ এলাকা বাসির মধ্যে জন প্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে কম্বল বিতরণ করেন। এসময় স্থানীয় হেডম্যান কার্বারী, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সাংবাদিক বৃন্দসহ, শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।কংজরী চৌধুরী কম্বল বিতরণ

কম্বল বিতরণ পূর্ব সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী বলেন, এ অঞ্চলের দরিদ্র জনগোষ্ঠির আপদে-বিপদে সবার আগে সেনাবাহিনী সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। অবহেলিত পাহাড়ী-বাঙ্গালীর স্বাস্থ্য, চিকিৎসা সেবা, স্যানিটেশন,বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, শীতবস্ত্র বিতরণ, দরিদ্র শিক্ষার্থীদের অর্থ সহায়তা,বৃত্তি প্রদানসহ আইন-শৃংখলা প্রদানে সবার আগে সেনাবাহিনী এগিয়ে আসে। কিন্তু দীর্ঘ দিন ধরে এখানের তৃণমূলের মানুষকে ভয় দেখিয়ে সংঘবদ্ধ একটি গোষ্ঠি নিজেদের স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে অহেতুক বিশৃংখলা সৃষ্ঠির পায়ঁতারা করছে। যা মোটেও সহ্য করার মত নয়। এখন সময় এসেছে প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ করার।

প্রধান অতিধি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ কামরুজ্জামান এনডিসি, পিএসসি এলাকা বাসির উদ্দেশ্যে বলেন, নিরাপত্তা বাহিনী পার্বত্য অঞ্চলে পাহাড়ি-বাঙ্গালী সকলের শান্তি সম্প্রীতি ও উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। শান্তি ও সম্প্রীতি বজায় থাকলে উন্নয়ন তরান্নিত হয়, যদি বেঘাত  সৃষ্টি হয় তাহলে উন্নয়নের গতি পথ থমকে যায়। তাই সকলে মিলে মিশে পার্বত্য এলাকার উন্নয়নে এক যুগে কাজ করার আহবান জানিয়ে বলেন নিরাপত্তা বাহিনী সবসময় আপনাদের পাশে আছে।
বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পার্বত্য চট্টগ্রামে নিরাপত্তার পাশাপাশি  আত্ম-সামাজিক উন্নয়নে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পর্যটন ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় অকৃত্রিম অবদান রাখছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *