খাগড়ছড়িতে ৮ স্বাস্থ্য সহকারীকে বদলি নিয়ে বিতর্কের ঝড়

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়ছড়িতে স্বাস্থ্য বিভাগের ৮জন স্বাস্থ্য সহকারীকে জেলা পরিষদের স্বারক ব্যতিরেকে প্রেষণে বদলি ও স্ব বেতনে পদোন্নতিকে ঘিরে স্বাস্থ্য বিভাগে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। সিভিল সার্জন ডা. নিশিত নন্দী মজুমদার সাক্ষরিত ১৭ জানুয়ারী ২০১৭ সিএস স্মারক নং-সং/৩-/২০১৭/৫৮২/৪ মূলে ৫জনকে এক সাথে ও অপর এক আদেশে স্ব বেতনে অমর বিকাশ চাক্মা ও দেবাঙ্কু চাক্মাকে স্বাস্থ্য সহকারী থেকে স্বাস্থ্য পরিদর্শক পদে পদোন্নতি কমিটি ব্যতিত পদে উন্নতি করা হয়।

জানা গেছে, এ নিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের মাঠ কর্মীদের মাঝে চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। প্রেষণে বদলি কৃত রতন দ্বীপ চাকমা ও কাঞ্চনমালা চাকমা জানান, জেলা পরিষদের স্বারক ব্যতিত ও তাদের পূর্বেও প্রেষণের বদলির আদেশ বাতিল না করে তাদেরকে পূনরায় অন্য উপজেলায় প্রেষণে বদলি করা হয়। পরিষদের স্মারক ব্যতিত একই আদেশে বদলি কৃত অন্যরা হলেন শুভাশিষ দেওয়ান, উষাশোয়াই মারমা ও মো. ফরহাদ খান। মাটিরাঙ্গার বেলছড়ি ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারী স্বপ্না তালুকদারকে (একমাত্র স্বাস্থ্য সহকারীকে) বদলি করে খাগড়ছড়ি সদরে নিয়ে আসা হয়। অথচ মাটিরাঙ্গায় স্বাস্থ্য সহকারীর সংকট রয়েছে এ অজুহাতে ওই ৫জন স্বাস্থ্য সহকারীকে মাটিরাঙ্গায় প্রেষণে বদলি করা হয়। একই ভাবে স্ব বেতনে উন্নীত পদ দুটিতে মিনুচিং মারমা ও আসমা আক্তারকে নিয়ে আসার প্রক্রিয়া চলছে।

পরিষদের স্বারক ব্যতিত রামগড় থেকে মনির হোসেনকেও খাগড়ছড়ি হাসপাতালে প্রেষণে আনা হয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিভিল সার্জন ডা. নিশিত নন্দী মজুমদার জানান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের অনুমোদন ও নোট শিটের মাধ্যমে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার কার্যকমের সমন্বয়ের জন্য বদলি বরা হয়। জেলা পরিষদের স্বাস্থ্য বিভাগের দেখভাল করার দায়িত্বে নিয়োজিত সদস্য এমএ জব্বার জানান, তিনি বিষয় খতিয়ে দেখবেন। সিভিল সার্জন অফিসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা জানান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের নির্দেশেই তাদের বদলি করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *