পিতা-পুত্র হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে বিক্ষোভ মিঠিল-মানববন্ধন

18596545_1853622874886803_1583342433_o

আল-মামুন,খাগড়াছড়ি:: খাগড়াছড়ি জেলা সদর উপজেলার নুনছড়ি থলিপাড়া এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় একই পরিবারের পিতা -পুত্র নিহত ও পরিবারের আরো দুই মহিলা সদস্য আহতের ঘটনায় মূল আসামী খোকনেশ্বর ত্রিপুরা, মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু, কালিবন্ধু ত্রিপুরাসহ অন্যান্যদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে জেলা আওয়ামীলীগ ও অংগ সংগঠনের একাংশ।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের শাপলা চত্বর এলাকা থেকে বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিন শেষে একই স্থানে এসে মানব বন্ধনের মাধ্যমে শেষ হয়।বিক্ষোভ মিছিলে অংশ গ্রহনকারীরা খুনীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে বিভিন্ন ধরনের প্লেকার্ড পদর্শন করে।খাগড়াছড়ি জলো আওয়ামীলীগরে শক্ষিা ও মানব সম্পদ বষিয়ক সম্পাদক  দিদারুল আলম এর নেতৃত্বে খাগড়াছড়ি পৌর মেয়র রফিকুল আলম,খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জহির উদ্দিন ফিরোজসহদলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও এ সময় বিভিন্ন সম্প্রদায়ের নারী-পুরুষ অংশ নেয়।

18575278_1853623018220122_2125554843_o

নিহত চিরঞ্জয়ের বড় ছেলে নিহার কান্তি ত্রিপুরা বাদী হয়ে গত ১২ মে, ২০১৭ ইং তারিখে খোকনেশ্বর ত্রিপুরা, মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু এবং কালিবন্ধু ত্রিপুরাসহ ৬৪জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পরপরই ৫ আসামীকে গ্রেফতার করলেও শীর্ষ আসামীদের পুলিশ আটক করছে না বলে অভিযোগ এনে বলেন, র্শীষ আসামীরা পুলশিরে চোখরে সামনে ঘুরাফরিা করলওে তাদের আটকে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে পুলিশ। তাই দ্রুত মামলায় জড়িত আসামীদের গ্রেফতারের দাবী করেন নেতৃবৃন্দরা। 

 প্রসঙ্গত: ১১মে রাতে ভুমি ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সদর উপজেলার নুনছড়ি এলাকায় প্রতিপক্ষের হামলা, গুলি ও বিভিন্ন ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ঘটনাস্থলে নিহত হন চিরঞ্জয় ত্রিপুরা। গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করালে তার ছোট ছেলে কর্ণ জ্যোতি ত্রিপুরা কে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা। এদিকে হামলায় গুরুতর আহত হয়ে চিরঞ্জয় ত্রিপুরার স্ত্রী ভবেলক্ষী ত্রিপুরা ও ছেলে কর্ণ জ্যোতি ত্রিপুরার স্ত্রী বিজলি ত্রিপুরা খাগড়াছড়ি আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *