আলোচিত বাংলাদেশ ক্রাইম নিউজ দেশের খবর পার্বত্য চট্টগ্রাম প্রশাসন ব্রেকিং নিউজ

বাল্য বিবাহ: বাবা-ছেলেকে পুলিশে দিল চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক:: খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলার গোমতি ইউনিয়নে প্রথম স্ত্রীকে রেখে ১৩ বছরের কিশোরীকে প্রলবণ দিয়ে বাল্য বিবাহের অপরাধে বাবা-ছেলেকে পুলিশে দিল স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান। বৃহস্পতিবার দুপুরে মাটিরাঙ্গা উপজেলার গোমতি ইউনিয়নে এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, গত ১০ জুন গোমতি ইউনিয়নের বান্দরছড়া এলাকার বাসিন্দা হুদা মিয়ার ছেলে আবু তাহের রাজু প্রথম স্ত্রীকে রেখে ( কোন প্রকার অনুমতি না নিয়ে) মুক্তা আক্তার নামের একই এলাকার ৮ম শ্রেণীতে পড়–য়া এক কিশোরীকে বিয়ে করে।

পরে বিষয়টি তার স্ত্রী জানতে পেরে গোমতি ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ করলে বৃহস্পতিবার তার নির্ধারিত ২য় বৈঠকের সময় দেয়া হয়। বৈঠকে স্থানীয় চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন,মেম্বার ওসমান গণি,লোকমান হোসেন,জয়নাল আবেদীন ও প্রথম স্ত্রী ও তার বড় ভাইসহ স্থানীয় গণমান্য ব্যাক্তিবর্গরা বাল্য বিবাহে অভিযুক্ত আবু তাহের রাজু ও তাকে বিয়েতে সহযোগিতাকারী তার পিতা হুদা মিয়া উপস্থিত হয়।

এক পর্যায়ে সালিশের কোন নিয়ম না মেনে রাজু গায়ের জোর দেখিয়ে বাজারে বিচারকদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করা সহ বিচারের আইন অমান্য করায় সকলের উপস্থিতিতে স্থানীয় ফাঁড়ির মাধ্যমে তাদের মাটিরাঙ্গা থানায় হস্থান্তর করা হয়। আটকের পর বাদীনি কে রাজুর পরিবার থেকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বাল্য বিবাহের বিষয়ে রাজুর প্রথম স্ত্রী নুর হাওয়া এ ঘটনার জন্য যথাযথ আইনি পদক্ষেপ গ্রহণসহ সঠিক আইনী বিচার দাবী করে বলেন, এ ধরনের ঘটনায় অপরাধীরা পাড় পেয়ে গেলে সমাজে অপরাধ দিন দিন বৃদ্ধি পাবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মাটিরাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: শাহাদাত হোসেন টিটো বলেন, বাল্য বিবাহের ঘটনায় বিচারকালে গোমতি ইউপি চেয়ারম্যান ২জনকে হস্থান্তর করতে নিয়ে এসেছে বলে খবর পেয়েছি। আমি থানার বাহিরে আছি। কাজ সেড়েই আমি থানায় গিয়ে বিষয়টি দেখছি।

বাল্য বিবাহের এর আগে বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশ হয়। মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা,খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন প্রশাসন বিষয়টি অবগত আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *