আলোচিত বাংলাদেশ দেশের খবর পার্বত্য চট্টগ্রাম ব্রেকিং নিউজ

খাগড়াছড়ি কলেজ সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ ৪তলা ভবন, পৌরসভার কাছে নিরাপত্তা দাবী

নিজস্ব প্রতিবেদক,খাগড়াছড়ি:: খাগড়াছড়ি পৌর শহরের কলেজ সড়কে জনৈক অজিত কর এর ৪তলা বিশিষ্ট বিল্ডিংটি ঝুঁকিপূর্ণ দাবি করে নিরাপত্তা চেয়ে পৌর মেয়রের নিকট লিখিত অভিযোগ করেছে স্থানীয় ও প্রতিবেশিরা গত ২ ডিসেম্বর স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ও অজিতকরের প্রতিবেশি চন্দ্র শেখর দাশসহ আরো ৯ জন প্রতিবেশী লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নেমেছে খাগড়াছড়ি পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশল শাখার কয়েকজন প্রকৌশলী। ইতোমধ্যে মৌখিক নির্দেশনায় স্থাপনার নির্মান কাজ বন্ধ করেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা ও স্থাপনায় নির্মাণ কাজ করার বন্ধ করার বিষয়টি নিশ্চিত করে খাগড়াছড়ি পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মো. জামাল হোসেন জানান, অভিযোগের আলোকে পৌর সার্ভেয়ার মো. মোস্তাফিজুর রহমান শিমুলের নেতৃত্বে তদন্ত কার্য্য চলছে।

এদিকে, প্রতিবেশী এ.কে.এম আনিছ আলম খাঁন (সেলিম), সনত বড়–য়া, চন্দ্র শেখর দাশ, মো. আশরাফ, হারাধন মহাজন, লায়লা বেগম, মোহাম্মদ আলী খোকন ও মো. আব্দুল হামিদ স্বাক্ষরিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, অজিত করের ৪তলা বিশিষ্ট মৃত্যুর ফাঁদ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ভবনটির পিছনের অংশে ফাটল ও মূল বেইসের পিলার থেকে ৮ফুট দুরত্বে দেয়াল দিয়ে রুম তৈরী করে অজিত কর। যার ফলে ভবনটি হেলানো অবস্থায় দেখা যায়। অভিযোগকারীদের অভিযোগ, ফাটল ঢাকতে অজিত কর নিজেই প্লাস্টার দিয়ে আবরন করে রেখেছে ফাটল অংশে। যার ফলে ওই এলাকার ১৫টি পরিবার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সর্বদা আতংকে বসবাস করছে।

আওয়ামীলীগ নেতা চন্দ্র শেখর দাশ অভিযোগে জানান, অজিত কর ১ ডিসেম্বর পুর্বানমুতি ব্যতিরেকে তড়িগড়ি করে ৪র্থ তলায় ৬টি এবং ৩য় তলায় ২টি করে জানালা স্থাপনের জন্য দেয়াল ভেঙে ফেলে। যা নকশা অনুমোদনের পরিপন্থি।

তবে, এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বিল্ডিং মালিক অজিত কর বলেন, এসব মিথ্যা ও বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। গত বছর ভূমিকম্পে বিল্ডিংয়ের বিভিন্ন অংশে সামান্য ফাটল দেখা দেয়, যা তৎসামান্য। তিনি আরো বলেন, বিল্ডিং নির্মাণে নকশা অনুমোদনসহ পৌর কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিয়ে নির্মান করা হয়েছে।

খাগড়াছড়ি পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মো. জামাল হোসেন জানান, আলোচিত রানা প্লাজার মতো দ্বিতীয় কোনো ঘটনা আমরা খাগড়াছড়িতে প্রত্যাশা করি না। বিল্ডিংয়ের মালিক অজিত কর কে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, যদি বিল্ডিং ঝুঁকিপূর্ণ নহে বলে দাবী করা হয়, তা প্রমানে অভিজ্ঞ প্রকৌশলী দ্বারা পরীক্ষা করে প্রত্যয়নপত্র জমা দেয়ার তাগিদ দেয়া হয়েছে বিল্ডিং মালিক অজিত করকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *