আন্তর্জাতিক ঢাকা ব্রেকিং নিউজ

নোয়াখালীর সুর্বণচরে গৃহবধুকে গণধর্ষণকারী ধর্ষকদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি।

ডেস্ক রির্পোট:: গতকাল বুধবার ৪ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্র, কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে নোয়াখালীর সুর্বণচরে সন্ত্রাসীদের দ্বারা গৃহবধুকে গণধর্ষনের ঘটনার তীব্র নিন্দা অবিলম্বে ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্টিত হয়।
কেন্দ্রীয় সভাপতি সীমা দত্তের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্যে রাখেন ঢাকা ১৬ আসনের প্রার্থী ও সংগঠনের কেন্দ্রীয় সদস্য নাঈমা খালেদ মনিকা, অর্থ সম্পাদক তসলিমা আক্তার বিউটি প্রমুখ।
নাঈমা খালেদ মনিকা বলেন, ১৯৭১ সালে ৩০ লক্ষ শহীদের পাশাপাশি ২ লক্ষ নারীর সম্ভ্রমের বিনিময়ে দেশ স্বাধীন হয়েছে। এই নির্বাচনে মানুষ তার সমস্ত অধিকার যেমন হারিয়েছে, তেমনি হারিয়েছে সম্মান, মর্যাদা, সম্ভ্রম।
৩০ ডিসেম্বর সন্ত্রাসীরা নোয়াখালীর সুবর্ণচরে এক গৃহবধু, চার সন্তানের জননীর উপর গণধর্ষণ চালিয়েছে স্বামী সন্তানের সামনে। নির্বিচারে আহত করেছে তার স্বামী সন্তানকে। একাত্তরে পাকিস্তানী শাসকদের দোসর রাজাকাররা এদেশের নারীদের সম্ভ্রম হানি করেছিল। আর আজ স্বাধীন দেশে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে একমাত্র দাবিদার শক্তির কাধেঁ পাকিস্তানী হানাদারের প্রেতাত্মা ভর করেছে। এই অপশক্তিকে চিনে নিতে হবে। এদের হাত থেকে আজ নিস্তার পেতে হলে সর্বস্তরের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
সভাপতি সীমা দত্ত বলেন, একটা দেশে নারী ও শিশুর অবস্থান নির্ণয় করে সেদেশে মানুষ কেমন আছে? নোয়াখালী সুর্বণচরে একজন মা সেভাবে গণধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হল তা কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। গত দশ বছরে এই সরকার নারীর নিরাপত্তা দিতে পারেনি। ধর্ষকদের আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে সরকারের ভিত্তিকে শক্ত করার চেষ্টা করেছে সে। তনু হত্যা, বর্ষবরণে নারী নিপীড়নসহ সর্বশেষ সুর্বণচরে চার সন্তানের জননীকে গণধর্ষণের ঘটনায় সরকার কোন উদ্যোগ নেবে না। সাধারণ মানুষকে আজ এর বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে।
নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে সন্ত্রাসী ধর্ষকদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন এবং দেশের সকল গণতন্ত্রমনা জনগণকে এই অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে সংগঠিত হয়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *