অহিংস ও মৈত্রী বার্তা বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ন দর্শন হিসেবে ভূমিকা রাখছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:: খাগড়াছড়ির মানিকছড়িতে অবস্থিত ‘আর্ন্তজাতিক স্মৃতিধাম বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র’-এর প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ ভদন্ত স্মৃতিমিত্র মহাথেরো’র ৬৩-তম জন্মজয়ন্তীতে অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, গৌতম বুদ্ধের অহিংস ও মৈত্রীর বাণী বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ন দর্শন হিসেবে ভূমিকা রাখছে।

সকল জীবের প্রতি সম-মর্যাদা ও ভালোবাসা এবং ভক্তিবাদের মাধ্যমে পৃথিবীর দেশে দেশে শান্তিময় জীবনের দুয়ার খুলেছে। ত্যাগেই সুখ, ত্যাগেই শান্তি’র মতো অমিয় বার্তার মাধ্যমে তিনি মানুষকে নির্মোহ-অমলিন জীবনের পথ বাতলে দিয়েছেন। আড়াই হাজার বছর আগের মৈত্রী দর্শন ধারাবাহিকভাবে জ্ঞান ও ধ্যান চর্চার জন্য অপরিহার্য্য হয়ে উঠেছে।

রবিবার দুপুরে দেশের অন্যতম এই ধর্মীয় গুরু’র জন্মজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে তিন পার্বত্য জেলাসহ বৃহত্তর চট্টগ্রামের ভক্ত ও অনুগামীরা উৎসব আমেজে শামিল হন। এই দিবস উপলক্ষে গণপ্রবজ্যা ও উপ-সম্পদা উদযাপন করা হয়। প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও বাংলাদেশ সংঘরাজ ভিক্ষু মহাসভা’র উপ-সংঘরাজ তিলোকানন্দ মহাথেরো।

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ-এর চেয়ারম্যান ও প্রতিষ্ঠানের সাধারণ সম্পাদক কংজরী চৌধুরী সভায় স্বাগত বক্তব্যে বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু’র নেতৃত্বে স্বাধীন বাংলাদেশ এখন তাঁর-ই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অসাম্প্রদায়িক নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে আলো ছড়াচ্ছে। সেই আলোতে এ দেশের সকল ধর্ম-বর্ণ ও মতের মানুষের জীবন বিকশিত হচ্ছে।

সমাজকর্মী উজ্জল বড়ুয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন মানিকছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, অধ্যাপিতা তৃপ্তি রানী বড়ুয়া, মাদল বড়ুয়া, চম্পক বড়ুয়া, বিপ্লব বড়ুয়া এবং রতন বড়ুয়া। এসময় গুইমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পংকজ বড়ুয়া, মানিকছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগ’র প্রচার সম্পাদক শফিকুর রহমান ফারুক, কমলছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান সাউপ্রু মারমা, পার্বত্য জেলা পরিষদ-এর জনসংযোগ কর্মকর্তা চিংলামং চৌধুরী এবং সাবেক ছাত্রনেতা আবু তাহের মাসুদ।

অনুষ্ঠানের শেষে চট্টগ্রাম বেতারের শিল্পী টিটু বড়ুয়া, অর্পিতা বড়ুয়া এবং অঞ্জু মল্লিক। এর আগে ‘স্মৃতিধাম আর্ন্তজাতিক বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র’র প্রতিষ্ঠাতা ও মহাপরিচালক ভদন্ত স্মৃতিমিত্র মহাথেরো সমবেত দায়ক-দায়িকাদের উদ্দেশ্যে পূণ্যদান আর্শীবাণী প্রদান করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *