রামগড়ে মায়ের সহযোগিতায় মেয়েকে পিতার ধর্ষণ

আল-মামুন,খাগড়াছড়ি:: খাগড়াছড়ির রামগড়ে মাদরাসা পড়ুয়া ছাত্রীকে মায়ের সহযোগিতায় ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তারই পিতার বিরুদ্ধে। এ ঘটনা জানাজানির পর পাষান্ড পিতা পলাতক রয়েছে। সে পেশায় দিনমজুর বলে জানা যায়।

স্থানীয়রা বৃহস্পতিবার রাতে মা ও মেয়েকে থানায় নিয়ে গেলে পুলিশের কাছে পিতার হাতে যৌন নির্যাতনের মর্মস্পর্শী বর্ননা দেয় ওই ছাত্রী। এ ধর্ষণের ঘটনায় পিতাকে মায়ের সহযোগিতার কথা উঠে আসে।

যৌন নির্যাতনের শিকার মেয়েটি জানায়, তার পিতা আবুল কাশেম (৪৩) গত ২ জুলাই রাতে জোরপূর্বক তাকে প্রথম ধর্ষণ করে। একইভাবে আরো ২-৩ বার ধর্ষণের শিকার হয় সে। পিতার পা ধরে ক্ষমা রক্ষা পায়নি সে। সর্বশেষ গত ১২ জুলাই গভীর রাতে ছোট ভাইবোনের সাথে ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় আবারও তাকে ধর্ষণ করতে গেলে আকুতি জানিয়েও পাষন্ড পিতার হাত থেকে রক্ষা হয়নি মেয়েটি।

ধর্ষণের সময় মেয়ে চিৎকার করতে চাইলে মা তার মুখ চেপে ধরতো বলেও জানায়। বিষয়টি প্রকাশ হলে তাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হতো। বিষয়টি প্রথমে মেয়ের দাদীকে ও পরে কোন প্রদক্ষেপ না নেয়ায় গত ১৪ জুলাই তার চাচা ওমর ফারুককে জানায় মেয়েটি।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার মো. আব্দুল হান্নান বলেন, মেয়েটির চাচা ওমর ফারুকের কাছ থেকে বিষয়টি জানার পরে তারা মেয়ের মুখে অভিযোগটি শোনার পর বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মেয়ে ও তার মাকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

রামগড় থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো: মনির হোসেন বলেন, মেয়ে ও তার মাকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। মেয়েটি একাধিকবার তার পিতার হাতে ধর্ষণের শিকার হওয়ার অভিযোগ করেছে এবং মাও বিষয়টি স্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুুতিসহ ধর্ষক পিতাকে গ্রেপ্তারের চেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *