হামলাকারীর মিথ্যা মামলায় অতিষ্ঠ দুই পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক:: গুইমারা উপজেলার হাফছড়িতে ইউনিয়নের কালাপানি এলাকার আব্দুল হক ও তার ছেলে মোহাম্মদ আলী ওরফে আব্দুল্লাহসহ তাদের সহযোগি চক্রের হাতে মারধর ও হামলা পর উল্টো মিথ্যা মামলায় হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে।

গুইমারা উপজেলার হাফছড়ি ইউনিয়নের কালাপানি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হয়রানীর শিকার স্থানীয় দুই পরিবারের মোঃ মাহতাব মল্লিক, আবু মল্লিক, মনোয়ারা বেগম বর্তমানে হামলা-ষড়যন্ত্রকারীদের যন্ত্রনায় অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।

অভিযোগে জানাযায়, আব্দুর রব হুজুরের ছেলে রবিউলের জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে রবিউলের পিতা আব্দুর রব হুজুরকে অভিযুক্তরা লাঠি-সোটা ও দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর করে। গুরুত্বর আঘাতে দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি চাদপুর মারা যান।

বর্তমানে প্রত্যক্ষদর্শী ও প্রতিবাদকারীদেরকেও বিভিন্ন প্রকার মারধর ও হুমকি-ধমকি অব্যাহত রেখেছে। নির্দোশ হয়েও হুমকি-ধমকি ও হয়রানির স্বীকার হচ্ছেন, রাশেদা বেগম, মনোয়ারা বেগম, ফাতেমা বেগম, সেলিনা বেগম, দেলোয়ার হোসেন সহ আরো অনেকে। ইতিপূর্বে জায়গা-জমিকে কেন্দ্র করে মনোয়ারা বেগমকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার অভিযাগ উঠেছে।

আরো জানাযায়, স্থানীয় নান্নু মিয়া ও রাশেদা বেগমের পুত্র আলা উদ্দীনকে চাকরী দেওয়ার মিথ্যা প্রলোবন দেখিয়ে ১ লক্ষ টাকা মোহাম্মদ আলী (আব্দুল্লাহ) গ্রহণ করে। টাকা নিয়ে মোহাম্মদ আলী ঢাকা চলে যায়। টাকা ফেরত চাইলে বিভিন্ন প্রকার হুমকি-ধমকি প্রদর্শনসহ বেশি বাড়াবাড়ী করলে ইয়াবা দিয়ে পুলিশে ধরিয়ে দিবে বলে হুঙ্কার করে উঠে।

ভুক্তভোগিরা বলেন, আব্দুর রব হুজুরের জায়গা অবৈধ দখল সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে মোহাম্মদ আলীর সাথে এলাকার অধিকাংশ লোকের সাথেই বিবাদ সৃষ্টি হয়। তার মারধরের কারনে আঃ রব হুজুরের মৃত্যু হয়। সে বিভিন্ন সময় মদ পান ও জুয়ার সাথে লিপ্ত থাকে। মাদক-দ্রব্য আইনের মামলায় দীর্ঘদিন সে জেল হাজতে ছিল। বর্তমানে জামিনে ছাড়া পেয়ে এলাকায় ফিরে এসে আগের চেয়েও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *