লংগদুর গণগ্রেফতার: ১১ জুন পার্বত্য জেলায় অর্ধদিবস হরতাল

নিজস্ব প্রতিবেদক: খাগড়াছড়ি-দীঘিনালা সড়কের ৪মাইল এলাকায় মোটরসাইকেল চালক নুরুল ইসলাম নয়নের হত্যাকারীকে গ্রেফতার ও লংগদু উপজেলার নির্দোষ বাঙালিদের গণ গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা জানিয়ে এর প্রতিবাদে ১১ জুন রবিবার ৩ পার্বত্য জেলায় অর্ধদিবস হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করেছে।

পার্বত্য নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় দপ্তরে সোমবার পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের উপদেষ্টা পরিষদের সভাপতি ও পার্বত্য নাগরিক পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জি: আলকাছ আলমামুন ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে এক জরুরী সভায় এ কর্মসূচি ঘোষণা করে। সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো  বার্তায় পার্বত্য নাগরিক পরিষদের দপ্তর সম্পাদক মো: খলিলুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে।

বিবৃতিতে  বলা হয়, গত ১লা জুন বৃহস্পতিবার লংগদুর বাসিন্দা যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম নয়ন (৪০)কে দিঘীনালার চার মাইল নামক স্থানে উপজাতী সন্ত্রাসীরা নৃশংষভাবে হত্যা করে। এখন পর্যন্ত প্রশাসন তার হত্যাকারীকে গ্রেফতার না করে উল্টো লংগদু থানার বসবাসরত বাঙালিদের গণহারে গ্রেফতার করছে। এ গনগ্রেফতারের প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে গ্রেফতারকৃত বাঙালিদের নি:শর্ত মুক্তির দাবী জানিয়ে নিন্মোক্ত কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

(১) নয়ন হত্যার বিচারের দাবীতে ৬ জুন মঙ্গলবার জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ, (২) ৭ জুন বুধবার সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ, (৩) ১০জুন চট্টগ্রাম মহানগরের প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ, (৪) ১০ জুন তিন জেলায় বিক্ষোভ মিছিল এবং (৫) নয়নের হত্যাকারীকে দ্রুত গ্রেফতার ও লংগদু উপজেলার নিরীহ বাঙালিদের গণগ্রেফতারের প্রতিবাদে এবং গ্রেফতারকৃতদের নি:শর্ত মুক্তির দাবীতে ১১ই জুন রবিবার তিন পার্বত্য জেলায় অর্ধদিবস হরতাল এর কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় ২জুন বাঙালিরা যখন নুরুল ইসলাম নয়ননের লাশের জানাজা ও বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ব্যস্ত ছিল, ঠিক তখনই জেএসএস কর্মীরা পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে উপজাতিদের বাড়ীতে আগুন ধড়িয়ে দিয়ে নয়ন হত্যার বিষয়টি ধামা চাপা দেয়ার চক্রান্ত করেছে।

অন্যদিকে দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের মহাসচিব পরস্পরের প্রতি যে ভাবে দোষারোপ করে কাদাঁ ছুরা-ছুড়ি করছে, তাতে পার্বত্যবাসী হতবাগ ও মর্মাহত হয়েছে। নেতৃবৃন্দ প্রশ্ন করেন “উপজাতি সন্ত্রাসী কর্তৃক পার্বত্য চট্টগ্রামে আর কত নিরীহ বাঙালী খুন হলে তাদের প্রতি আপনারা সহানুভূতিশীল হবেন? আপনারা নিশ্চয়ই জানেন যে, উপজাতিদের এটা পুরাতন কৌশল, বাঙালীদের হত্যা করে, তারা নিজেরা নিজেদের ঘরে আগুন লাগিয়ে আন্তর্জাতিক ভাবে বাঙালীদের ও বাংলাদেশকে হেয় প্রতিপন্ন করতে এ কৌশল অবলম্বন করেন।

নেতৃবৃন্দ অনতিবিলম্বে নয়ন এর হত্যাকারীকে গ্রেফতার ও বাঙালিদের গণগ্রেফতার বন্ধ এবং গ্রেফতারকৃতদের নি:শর্ত মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ ও পার্বত্য নাগরিক পরিষদ আরো কঠিন কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *