গুইমারায় বাণিজ্যিক প্লট দখলের চেষ্টার অভিযোগ

অন্যায় আবদার মেনে না নেওয়ায় জায়গা দখলের পায়তারা চলছে : টিপু  
নিজস্ব প্রতিবেদক:: গুইমারা ভূমি বিরোধ নিয়ে সংবাদ প্রকাশের পর জায়গার মালিকপক্ষ অভিযোগ করে জানান, অন্যায় আবদার মেনে না নেওয়ায় ষড়যন্ত্রকারীরা জায়গা দখলের পায়তারা করছে। এ অভিযোগ করেন,খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার বাসিন্দা তোফায়েল হোসেন টিপু। বুধবার লিখিল এক অভিযোগে তিনি জানান, ১৯৭ নং গুইমারা মৌজার ২৬৯নং খতিয়ানের ওয়ারিশ সূত্রে মালিকানাধীন টিপু,তার ভাই ও তার মায়ের নামে রেকর্ডভুক্ত জায়গায় দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছে।

বিগত ৩ বছর আগে ঐ জায়গায় বাণিজ্যিক প্লট নির্মাণ করে ভাড়া দিয়ে আসছেন তারা। সম্প্রতি সোনালী ব্যাংক গুইমারা শাখা ভাড়া দেওয়ার জন্য দোলাতলা  স্থাপনের কাজ শুরু করলে স্থানীয় প্রভাবশালী শিবু প্রসাদ ঘোষ উক্ত জায়গায় তার জায়গা আছে দাবী করে বিরোধ সৃষ্টি করে জায়গা দখলের পায়তারা করছে।  

শিবু প্রসাদ ঘোষের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে তিনি আরো জানান, গত ২৩ জুন ২০১৭ তারিখে পবিত্র ইফতারের আগ মূহুত্বে শিবু প্রসাদ ঘোষ গুইমারা থানার এসআই তৌহিদ এবং শিবু ঘোষের লোকজন নিয়ে দ্বিতীয় তলার কাজ বন্ধ করতে বলে। কারণ জানতে চাইলে তার লোকেরা টিপু ও তার ভাইদের লাঞ্চিত করে বলে অভিযোগ আনেন।

এ সময় গুইমারা থানার এসআই তৌহিদ বিনা নোটিশ ও আদালতের নিষেধাজ্ঞা ছাড়াই হুমকি প্রদর্শনসহ লাঞ্চিত করে বলে জানান। এ সময় আরো অভিযোগ আনেন, পূর্বে দোকান প্লট তৈরীর সময় কোন জায়গা দাবী না করলেও বর্তমানে প্রতিহিংসা আর লোভের বসে জায়গা হাতিয়ে নেওয়া ও ব্যাংক স্থাপন বাঁধা দিতেই শিবু প্রসাদ ঘোষ ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে বলে তিনি অভিযোগ আনেন।  

শিবু প্রসাদ ঘোষ তার ৩য় শ্রেণীর টিলা ভূমির কিছু অংশ গুইমারা (বিসিক) ক্ষুদ্র কুটির শিল্পকে দিয়ে বর্তমানে জায়গা কম আছে অজুহাতে টিপুগংদের মালিকানাধীন জায়গা জবর দখলের পায়তারা করছে বলে অভিযোগ আনেন। এ সময় টিপু বলে শিবু প্রসাদ ঘোষ নিজের জায়গা নিজে পরিমাপ করলেই তার জায়গার জটিলতার সমাধান তিনি নিজে করতে পারেন। এ বিষয়ে প্রশাসনের সহযোহিতা কামনা করেন টিপু।

এ বিষয়ে শিবু প্রসাদ ঘোষ বলেন, আমার কোন বাহিনী নেই। আর আমি তাদের জায়গা দখলের চেষ্টার কোন কারণ নাই। আমার জায়গা তাদের বাণিজ্যিক প্লট নির্মাণকালীন সময়ে দখল করে নেই তাই আমি আমার জায়গা ফেরত চাই। অন্যথাই তিনি আইনের আশ্রয় নেবেন বলে জানান। আমার কাজ থেকে চেয়ে নেওয়া জায়গা পরে ছেড়ে দেওয়ার কথাটি (মা মনি) লিটন পাল, চাষী মোতালেব স্বাক্ষী আছে বলে তিনি জানান। এদিকে, গুইমারা থানা সূত্র জানায়, ২৩ জুন ২০১৭ তারিখে শিবু প্রসাদ ঘোষ এ নিয়ে লিখিত অভিযোগ করেছে। নিয়ম অনুসারে তদন্ত চলছে।

গুইমারা থানার এসআই তৌহিদুল রহমান জানান, আদালতের কোন নির্দেশের প্রয়োজন নেই,আইন শৃঙ্খলা বিঘœ ঘটনার আশঙ্কায় দু’পক্ষকে কাজ নিয়ে দ্বন্ধ না করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।  

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যবসায়ী জানান, কাশেম মার্কেটে ভবনের দ্বিতীয়তলার কাজ শেষে ইফতারের আগে পুলিশ আসার পূর্ব সময়ে কোন ধরনের আইন শৃঙ্খলা অবনতি ঘটার মত ঘটনা ঘটেনি। পুলিশ আসার পর হঠাৎ দু’পক্ষের মধ্যে বাকবিকন্ডার এক পর্যায়ে শিবু ঘোষের পক্ষের লোকেরা শাবুদের শারিরীক ভাবে লাঞ্চিত করে এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে বলে জানান।   

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *